রংপুরে ২৯টি কৃষিপণ‍্যের মূল্য বেধে দেওয়া দাম কার্যকর হচ্ছে না

রংপুরে ২৯টি কৃষিপণ‍্যের মূল্য বেধে দেওয়া দাম কার্যকর হচ্ছে না

স্টাফ রিপোর্টার রংপুর।

রংপুরে বাজার নিয়ন্ত্রণে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ সহ বিভিন্ন দপ্তর অভিযান চালালেও নির্ধারিত মূল্যে পণ‍্য পাওয়া যাচ্ছে না।২৯টি কৃষিপণ‍্যের মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়া হলেও রংপুরের বাজারে তা কার্যকর হচ্ছে না।

রংপুর নগরীর কামাল কাছনা বাজার সহ সিটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নতুন নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী, খুচরা পর্যায়ে গরুর মাংস কেজিতে ৬৬৪ টাকা ৩৯ পয়সা এবং খাসির মাংস এক হাজার ৩ টাকা ৫৬ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু বাজারে ৭২০ থেকে ৭৫০ টাকা পযর্ন্ত গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ১১০০ টাকার ওপরে। ব্রয়লার মুরগির মাংস কেজি ১৭৫ টাকা ৩০ পয়সা নির্ধারণ করা হলেও তা বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২১০ টাকায়। ডিম প্রতি পিস ১০ টাকা ৪৯ পয়সা, দেশী পেঁয়াজ কেজি প্রতি ৬৫ টাকা ৪০ পয়সা,

রসুন প্রতি কেজি ১২০ টাকা ৮১ পয়সা, আমদানি করা আদা প্রতিকেজি ১৮০ টাকা ২০ পয়সা, শুকনা মরিচ প্রতিকেজি ৩২৭ টাকা ৩৪ পয়সা, কাঁচামরিচ প্রতিকেজি ৬০ টাকা ২০ পয়সা, ফুলকপি কেজি প্রতি ২৯ টাকা ৬০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব পণ‍্যের প্রতিটিই বেধে দেয়া দামের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। তবে বাঁধাকপি ও ফুলকপি নির্ধারিত দামের চেয়ে কিছুটা কম দামে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া বেগুন ৪৯ টাকা ৭৫ পয়সা, শিম ৪৮ টাকা, আলু ২৮ টাকা ৫৫ পয়সা, টমেটো ৪০ টাকা ২০ পয়সা, মিষ্টি কুমড়া ২৩ টাকা ৩৮ পয়সা নির্ধারিত মূল্যের কাছাকাছি রয়েছে। এছাড়া জাহিদি খেজুর ১৮৫ টাকা ৭ পয়সা, চিড়া (মোটা) ৬০ টাকা, প্রতিহালি সাগর কলা ২৯ টাকা ৭৮ পয়সা ও বেসন ১২১ টাকা ৩০ পয়সা দাম বেঁধে দেওয়া হলেও এসব পণ‍্য বেশিদামে বিক্রি হচ্ছে।

রংপুর মেট্রোপলিটন মেম্বারের সভাপতি রেজাউল ইসলাম মিলন জানান, কিছু কিছু পণ‍্য সরকারের বেধে দেওয়া দামে বিক্রি করলে ব‍্যবসায়ীদের লোকসান হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *