বুটেক্সে নতুন কমনরুম নিয়ে ছাত্রীদের নানা অভিযোগ

বুটেক্সে নতুন কমনরুম নিয়ে ছাত্রীদের নানা অভিযোগ

সানজানা শওকত মম, বুটেক্স প্রতিনিধি

বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুটেক্স) অবসর সময় কাটানো, নামাজ ও অন্যান্য কাজ সম্পাদন করার জন্য ছাত্রীদের যে কমনরুম রয়েছে তাতে নানা ধরনের সমস্যার কথা জানা যায়। কমনরুমে নামাজ স্থানের স্বল্পতা, গ্লাসে যথাযথ পর্দার ব্যবহার না করা, ওযুখানার অব্যবস্থাপনা ইত্যাদি অভিযোগ পাওয়া যায় ছাত্রীদের কাছ থেকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের নিচ তলায় কমন রুমের আয়তন পুরাতন বিল্ডিংয়ের কমনরুমের তুলনায় কিছুটা বড় হলেও ছাত্রীদের জন্য তা যথেষ্ট নয়। কমন রুমের মধ্যে নামাজ পড়ার জন্য যে জায়গাটুকু বরাদ্দ করা হয়েছে তা পর্যাপ্ত নয়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের এপারেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৪৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী তাসমিয়া বিনতে ফাইজুর জানান, কমনরুমে কাঁচ দিয়ে ঘেরা জানালার অপর পাশ থেকে যেকেউ ভেতরের পাশ স্পষ্ট দেখতে পারে। কিছু পর্দার ব্যবস্থা করা হলেও তা বাতাসের কারণে খুবই সহজে সরে যায়।

যদি জানালাগুলোতে কালো বা রঙিন কাঁচের ব্যবহার করলে এ সমস্যা নিরসন এবং অস্বস্তিকর পরিস্থিতি এড়ানো যেতো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী জানান, নিচ তলায় ওয়াশরুমের সামনের ওযুখানায় কোনো হ্যান্ডওয়াশ নেই এবং ওয়াশরুমগুলো বেশ অপরিষ্কার ও ব্যবহারের অযোগ্য। মেয়েদের ওয়াশরুমে মাঝেমধ্যে ছেলেরা প্রবেশ করে।

ইতোমধ্যে আমরা কিছু সহপাঠী এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সম্মুখীন হয়েছি। ওযু করার সময়ে কোনো ছেলে ওয়াশরুমে প্রবেশ করলে তা একজন মেয়ের জন্য অনাকাঙ্ক্ষিত এবং বিব্রতকর।

তাছাড়া আরও শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলে জানা যায়, লাঞ্চ টাইমে যোহরের নামাজ আদায় করার জন্য ছাত্রীরা কমন রুমে আসে। কিন্তু নামাজ ঘরে সর্বোচ্চ ১০ জন একসাথে নামাজ আদায় করতে পারে। তাদেরকে কয়েক ভাগে বিভক্ত হয়ে নামাজ আদায় করতে হয়। একভাগের নামাজ শেষ হওয়ার পর আরেকভাগ নামাজ আদায় করার সুযোগ পায়। এতে দুপুরের খাবার খাওয়ার অনেকটা সময় চলে যায়।

আরও জানা যায়, নামাজ পড়ার জন্য যে কার্পেটগুলো দেওয়া হয়েছে তা বেশ ময়লা এবং অপরিষ্কার। আর ছাত্রীদের জন্য যে অজুখানা তৈরীর কথা ছিল তা এখনো সম্পন্ন হয়নি।

উল্লেখ্য, অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সেমিনারে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এসব সমস্যার কথা কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও এখনো সমস্যাগুলোর সমাধান ছাত্রীরা পায় নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *