বলি সুষ্ঠু হয়েছে নির্বাচন-ভোট দিয়েছে প্রশাসন

বলি সুষ্ঠু হয়েছে নির্বাচন-ভোট দিয়েছে প্রশাসন

রংপুর প্রতিনিধিঃ
বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক রুমিন ফারহানা বলেন, বলি সুষ্ঠু হয়েছে নির্বাচন, ভোট দিয়েছে প্রশাসন, তাকিয়ে ছিল জনগণ, এই হল কমিশন।

এই ধরনের নির্বাচন আর বাংলাদেশে হবে না। গতকাল শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়স্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপি আয়োজিত রংপুর বিভাগীয় সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া আমরা নির্বাচনে যাবো না। ক্ষমতা থেকে যদি নামেন মানুষ আপনাদের বিচার করবে।

বিএনপি প্রতিহিংসার রাজনীতি করে না। যদি করত তাহলে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়ার সময় আপনাদের নেত্রী দেশে আসতে পারতো না।

রুমিন ফারহানা বলেন, যে ভোটে ভাই তার ভাইকে হারিয়েছে, মা তার সন্তানকে হারিয়েছে, স্ত্রী তার স্বামীকে হারিয়েছে, তারাই বিচার করবে।

তিনি বলেন, তারা বলেন বিএনপি আন্দোলন করতে জানে না। বিএনপি লগি বৈঠা দিয়ে মানুষ মারতে পারে না। বিএনপি বাংলাদেশের মানুষের রক্ত নিয়ে রাজনীতি করতে পারে না। বিএনপি রক্তের উপরে দাঁড়িয়ে ক্ষমতায় যায় না। বিএনপি সাধারণ মানুষের দল।

বিএনপির এই সাবেক সংসদ সদস্য বলেন, বিএনপি যদি রক্তের রাজনীতি করতো তাহলে ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসতো। ২০০৮ সালের নির্বাচন কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি।

এই এক এগারোর সরকার তাদের আন্দোলনের ফসল। এক এগারো যারা ঘটিয়েছে তারা নিরাপদে বিদেশে আছে। আবার কাউকে কাউকে সংসদেও দেখতে পাই। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রে আপনারা ক্ষমতায় এসেছেন।

যদি এই চক্র ব্যবহার করে আবারো ক্ষমতায় যাবেন, আপরারা ভুল করবেন। মানুষ আপনাদের ছাড়বে না।

রুমিন ফারহানা বলেন, প্রতিটি জিনিসের দাম আকাশে উঠে গেছে। চাল, তেলসহ নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার বিষয়ে শেখ হাসিনাকে জবাব দিতে হবে।

দফায় দফায় বিদ্যুতের দাম, গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। কুইক রেন্টাল হলো কুইক চুরির একটি মাধ্যম। টাকা পাচারের মাধ্যম। কুইক রেন্টাল দিয়ে লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে।

তিনি বলেন, আমরা যখন ক্ষমতায় যাবো তখন একটা একটা করে চোরের বিচার করোব। যারা বিদেশে টাকা পাচার করেছে তাদের কান ধরে দেশে নিয়ে আসবো। আপনারাই বিচার করবেন।

ইভিএমে ভোট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কোন ইভিএমে ভোট হবে না। ভোট হবে ব্যালটে।

হিসাব করে চলবেন দিন কিন্তু বেশী নাই শেখ হাসিনাকে গদি থেকে নামানোর। সারা বাংলাদেশ আমাদের সঙ্গে আছে। খালেদা জিয়াসহ সকল নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান, রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু, রংপুর মহানগর বিএনপির আহবায়ক

সামসুজ্জামান সামু, সদস্য সচিব মাহফুজ উন নবী, রংপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক সাইফুল ইসলাম ও সদস্য সচিব আনিছুর রহমান লাকু প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *