নগরীর গুড়াতীপাড়ায় বিল্ডিং কোড অমান্য করে ভবন নির্মানে বাধা দেয়ায়

নগরীর গুড়াতীপাড়ায় বিল্ডিং কোড অমান্য করে ভবন নির্মানে বাধা দেয়ায়

প্রতিবেশিককে ধরে নিয়ে গিয়ে শারীরিক নির্যতন ও মারধরের ঘটনায় নির্মানাধীন ভবন ঘেরাও ও সড়ক অবরোধ করেন এলাকাবাসি

স্টাফ রিপোর্টার ॥

বিল্ডিং কোড অমান্য করে ভবন নির্মানে বাধা দেয়ায় ভবন মালিককর্তৃ এক প্রতিবেশিককে উক্ত ভবনে ধরে নিয়ে গিয়ে শারীরিক নির্যতন ও মারধরের ঘটনায় পুলিশ সদস্যের নির্মানাধীন বাড়ী ঘেরাও, রংপুর মহানগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে শাপলা রোড অবরোধ। এক ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে।

জানাগেছে, মহিলা কন্সটেবল শেফালী বেগম রংপুর মহানগরীর গুড়াতীপাড়া (নতুন) এলাকায় জমি ক্রয় করে এবং রংপুর সিটি কর্পোরেশনের বিল্ডিং কোড অমান্য করে একটি বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্মানাধীন ভবনের নির্মাণ সামগ্রী প্রতিবেশিদের ঘর-বাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরে। ফলে প্রতিবেশিরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গতকাল বুধবার বিকেলে বিল্ডিং কোড অমান্য করে ভবন নির্মানে প্রতিবেশি আশরাফুল বাধা দিলে ভবনের মালিক এর নিদের্শে তার ভাই পুলিশ সদস্য কামালও অপর সহযোগি আশরাফুলকে ধরে নিয়ে গিয়ে উক্ত ভবনে আটক করে রাখে এবং শারীরিক নির্যাতন ও মারধর করেন। প্রতিবেশি আশরাফুলকে মারধরেন ঘটনায় এলাকাবাসি অত্র এলাকাবাসিসহ সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসি উক্ত পুলিশ সদস্যের নির্মানাধীন বাড়ী ঘেরাও এবং রংপুর মহানগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে শাপলা রোডস্থ গুড়াতীপাড়া (নতুন) এলাকায় অবরোধ। ক্রমান্বয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। পরে বিকেল সাড়ে ৫টায় রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ সময় রংপুর কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদ বলেন, এ ঘটনায় অপরাধী যেই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরে পুলিশি হেফাজতে কালামকে রংপুর কোতয়ালী থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

 

এম. মিরু সরকার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *