ধর্ষনের স্বীকার প্রতিবন্ধী মেয়ে-৭ মাসের অন্তসত্বা

রংপুরে ধর্ষনের স্বীকার প্রতিবন্ধী মেয়ে-৭ মাসের অন্তসত্বা।

নিজস্ব প্রতিবেদক: রংপুর নগরীর দামোদরপুর ১৩ নং ওয়ার্ডের ফরহাদ হোসেন,স্ত্রী মোছাঃ রোজিনা আক্তার ইয়াসমিন’র মেয়ে প্রতিবন্ধী মোছাঃ রিফা মনি ১০ নং ওয়ার্ডে তার নানার বাসায় থাকতো,এর মাঝেই বাসায় কেউ না থাকার সুযোগে পার্শ্ববর্তি একই ওয়ার্ডের মৃত আকবর হোসেনের ছেলে মোঃ আবুল কালাম আযাদ(৫১) রিফা মনিকে একা পেয়ে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।

রংপুর নগরীর দামোদরপুর ১৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ ফরহাদ হোসেন ও তার স্ত্রী মোছাঃ রোজিনা আক্তার ইয়াছমিন ঢাকার সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আয়া এবং স্বামী ওয়ার্ড বয়ের চাকুরী করেন,গত ৩০ এপ্রিল ২০২২ ইং ঈদুল ফিতরের ছুটিতে রংপুর নগরীর বখ্তিয়ার পুর আদর্শগ্রাম ১০ নং ওয়ার্ডে তার বাবা ইব্রাহীম খলিলের বাড়িতে বেড়াতে আসেন,সাথে তাদের এক ছেলে সন্তান ও প্রতিবন্ধী মেয়ে রিফা মনি কে নিয়ে।

এবং ঈদ উদযাপনের পরে রিফা মনি কে রেখে তারা তাদের একমাত্র ছেলে সন্তান কে নিয়ে উভয়েই ঢাকা চলে যায়।

পরে ১৪/ ০৯/ ২০২২ ইং পূনরায় রোজিনা আক্তার তার বাবার বাড়িতে এসে তার প্রতিবন্ধী মেয়ে রিফা মনিকে নিয়ে ঢাকার সাভারে নিয়ে যায়।

হঠাৎ কয়েকদিন পরে রিফার বুকে প্রচন্ড ব‍্যাথা হওয়ায় রোজিনা আক্তার রিফা মনিকে গ‍্যাস্ট্রিকের ঔষধ

খাওয়ায়,তাতেও ব‍্যাথা না সারলে পরে তাকে ঐ হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক ট্রিটমেন্টে করেন এবং তাতে জানতে পারেন যে তার মেয়ে রিফা মনি অন্তসত্বা।
রোজিনা আক্তার তার মেয়ে রিফা মনি কে এই জঘণ‍্য তম কাজের কথা জিজ্ঞেস করলে রিফা মনি বলে তাকে রেখে ঢাকা

আসার পরে গত ১২/ ০৮ /২০২২ ইং তারিখে দুপুরের খাবারের পরে আনুমানিক ০৩ ঘটিকার সময় বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগ নিয়ে পার্শবর্তি ও রিফার নানা বাড়ির দক্ষিন দিকের বাড়ি মৃত আকবর আলীর ছেলে আবুল কালাম আযাদ(৫১) তার
টিভির ঘরে প্রবেস করে খাটের উপর ফেলে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।

এবং শেষে তাকে বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে বলে এই কথা কাউকে জানালে রিফার পরিবারের সকলের অনেক বড় ক্ষতি করবে।

এমনকি তাকে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে।এই ঘটনার কথা তার মেয়ের কাছ থেকে শোনার পর দ্রুত তার স্বামী ফরহাদ হোসেনকে অবগত করে রিফা কে নিয়ে রংপুরে তার বাবা ইব্রাহীম খলিলের বাসায় চলে আসে।

করে ঢাকায় তার বাবা মায়ের কাছে রাখেন ওখানেই তার বাচ্চা প্রসব হবে।আপনি সেই থাকা খাওয়ার খরচ বহন করবেন।তাহলে ঐ মেয়েটিও সমাজে বলতে পারবে তার বাচ্চার বাবা আপনি।এ ছাড়া একটাই পথ তারা মামলা করবে,তখন ধর্ষক আবুল কালাম বলেন আপনি যেভাবেই হোক বিষয়টা টাকার মূল‍্যে ব‍্যবস্থা করেন।কিন্তু খতিবর রহমান তাকে বারংবার এটাই বোঝায় যে প্রতিবন্ধী রিফা মনি কে বিয়ে করা ছাড়া আর কোনো উপায় নাই, তাই আপনি ভেবে চিন্তে আমাকে মতামত জানাবেন বলে ফোন রেখে দেয়।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোঃ আলমগীর হোসেন বলছেন নারী ও শিশু আদালতের বিশেষ ট্রাইবুনালে আসামীর এমন ঘৃণিত জঘন‍্য ও অমানবিক অপরাধের রায় মৃত‍্যুদন্ড কার্যকরের বিধান রয়েছে।অপরদিকে হাজির হাট থানার ওসি রাজিফুজ্জামান বলেন ধর্ষক গ্রেফতারের জন‍্য সব রকমের প্রস্তুতি আমরা নিচ্ছি,এবং খুব দ্রুত আসামী গ্রেফতার হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *