দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারীর ৪টি আসনে ২৬ জন প্রার্থী প্রতীক নিয়ে প্রচারনায়

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারীর ৪টি আসনে ২৬ জন প্রার্থী প্রতীক নিয়ে প্রচারনায়।

ষ্টাফ রিপোর্টার আব্দুস সালাম:-দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারীর ৪টি আসনে যাচাই বাছাই , মনোনয়নপত্র বাতিল এবং আপিল নিষ্পক্তি ও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে চূড়ান্ত হিসাবে এ ৪টি আসনে মোট ২৬ জন প্রার্থী প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন।

এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারীর ৪টি আসনে মোট ৩৭ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। জেলার চারটি আসনে ৩৭ জনের মধ্যে ৭ জন প্রার্থী স্বেচ্ছায় নির্বাচন থেকে সরে দাড়িয়েছেন। বাকি ৩০ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন ২৬ জন। সকল প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীরা প্রতীক পেয়ে প্রচার প্রচারনায় মাঠে নেমে পড়েছেন।

সোমবার (১৮ই ডিসেম্বর) জেলা রির্টানীং অফিসার জেলা প্রশাসক জনাব পঙ্কজ ঘোষ প্রতীক বরাদ্দ দেন। জেলা রির্টানীং অফিসার জেলা প্রশাসক জনাব পঙ্কজ ঘোষ জানান, এখন থেকে নিয়ম অনুযায়ী প্রচার-প্রচরণা চালাতে পারবেন।

নীলফামারী-১ ( ডোমার-ডিমলা) আসনে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী হলো মোট ৭ জন। এনারা হলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোঃ আফতাব উদ্দিন সরকার (নৌকা), জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোঃ তছলিম উদ্দিন (লাঙ্গল), তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী এ্যাডঃ এন কে আলম চৌধুরী (সোনালী আঁশ),

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন (বিএনএম) প্রার্থী জাফর ইকবাল সিদ্দিকী (নোঙ্গর), জাতীয় পার্টি প্রার্থী (জেপি) ডাঃ মখদুম আজম মাশরাফী (বাইসাইকেল), বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্ট প্রার্থী (বিএনএফ) সিরাজুল ইসলাম (টেলিভিশন) এবং স্বতন্ত্র বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের প্রার্থী যুক্তরাজ্য শাখার আহ্বায়ক ব্যারিষ্টার মোঃ ইমরান কবির চৌধুরী ( ট্রাক) প্রতীক পেয়েছেন।

নীলফামারী-২ (সদর) আসনে মোট ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। এনারা হলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান (নূর) (নৌকা). জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. শাহজাহান আলী চৌধুরী (লাঙ্গল), বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টি প্রার্থী মোঃ মোরছালিন ইসলাম (ডাব) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জয়নাল আবেদীন (ট্রাক) প্রতীক পেয়েছেন।

নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনে মোট ৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। এ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী দেয় নাই। তবে এ আসনে মহাজোটের জাতীয় পার্টির প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য রানা মোহাম্মদ সোহেল (লাঙ্গল) দেয়া হয়েছে। অন্যা্ন্য প্রার্থীরা হলেন, তৃনমুল বিএনপির প্রার্থী মো. খলিলুর রহমান (সোনালী আঁশ),

বাংলাদেশ কল্যাণ পাটির প্রার্থী মো. বাদশা আলমগীর (হাতঘড়ি), স্বতন্ত্র প্রার্থী কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন পাভেল (কাঁচি), স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা যুবলীগের সহসভাপতি মার্জিয়া সুলতানা (ঈগল), স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ শামীম (মোড়া),

স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য জেলা জাতীয় পাটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সহসভাপতি কাজী ফারুক কাদের (কেটলি) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মীর গঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ন-আহ্বায়ক হুকুম আলী খান (ট্রাক) প্রতীক পেয়েছেন।

নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরীগঞ্জ) আসনে মোট ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। এ আসনেও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী দেয় নাই। এ আসনে মোট ৭ জন প্রার্থীরা হলেন, মহাজোটের অর্থাৎ জাতীয় পার্টির বর্তমান সংসদ সদস্য মোঃ আহসান আদেলুর রহমান আদেল (লাঙ্গল). ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী মোঃ আব্দুল হাই সরকার (আম), তৃণমুল বিএনপির প্রার্থী মোঃ আব্দুল্লাহ আল নাসের (সোনালী আঁশ), জাসদ ইনুর প্রার্থী মো. আজিজুল হক (মশাল),

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রার্থী এম সাজেদুল করিম (নোঙ্গর), স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোখছেদুল মোমিন (ট্রাক) ,স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা জাতীয় পার্টির সহসভাপতি সিদ্দিকুল আলম (কাঁচি) প্রতীক পেয়েছেন। এই আসনে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করেছেন, মোঃ জাকির হোসেন বাবুল (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ) ও মোঃ শাখওয়াৎ হোসেন (স্বতন্ত্র)।

উল্লেখ্য,আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে নীলফামারীর চারটি আসনে সাত জন পদপ্রার্থী তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দুজন, জাকের পার্টির দুজন, স্বতন্ত্র প্রার্থী দুজন ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের একজন রয়েছে।

রবিবার (১৭ ডিসেম্বর) মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে তারা প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক পঙ্কজ ঘোষ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। প্রত্যাহারকারীরা হলেন নীলফামারী-১ (ডোমার, ডিমলা) খায়রুল আলম বাবুল ((স্বতন্ত্র প্রার্থী) ও মো. লতিবালী (জাকের পার্টি)।

নীলফামারী -২ (সদর) মো. আবু সাঈদ (জাকের পার্টি)।নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করেন অধ্যাপক আজিজুল ইসলাম (জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল) ও মো. গোলাম মোস্তফা (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *