দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত গৃহবধূ

উলিপুরে মধ্যরাতে আবাসন প্রকল্পে দুর্বৃত্তদের হামলা । আহত গৃহবধূ হাসপাতালে
ফয়জার রহমান রানু, উলিপুরঃ
প্রধানমন্ত্রীর আবাসন প্রকল্পে আশ্রিত একটি অসহায় পরিবারকে দুর্বৃত্তরা মধ্যরাতে বেধড়ক পিটিয়ে ঘর থেকে উচ্ছেদের চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় ঐ পরিবারের গুরুত্বর আহত গৃহবধু লাইলী বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে (৫ নভেম্বর) শনিবার মধ্য রাতে  কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার দূর্গম চরাঞ্চল চর-জলঙ্গার কুঠি আবাসন প্রকল্পে।
এ ব্যাপারে অসহায় পরিবারটি উলিপুর থানা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) উলিপুর বরাবর পৃথক পৃথক অভিযোগ দায়ের করেছে। সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা গেছে, ঘটনার দিন বিকেলে আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দা আঃ কাদের (বাবু) তার বাড়িতে থাকা অন্তঃসত্ত্বা কন্যা লতা বেগম এর চলাচলের সুবিধার্থে বাসার বারান্দার পার্টিশনের একটি টিন খুলে যাতায়াত নির্বিঘ্ন করেন।
এ ঘটনাকে পূজিকরে স্থানীয় কতিপয় চিহ্নিত   দুর্বৃত্ত ওইদিন সন্ধ্যায় গৃহ কর্তার কাছে এসে টিন খোলার অপরাধে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে বসে। অসহায় গৃহকর্তা দাবিকৃত টাকা প্রদানে অপারগতা প্রকাশ করায় ৬/৭ জনের দুর্বৃত্তের দল ওইদিন মধ্যরাতে ঘুমন্ত পরিবারের উপর হামলে পড়ে। তারা ঘরের দরজা ধাক্কা মেরে খুলে অসহায় পরিবারের গৃহবধুসহ একে একে সকলকে বেধরক পিটিয়ে আহত করে।
তাদের নিষ্ঠুরতার হাত থেকে অন্তঃসত্ত্বা কন্যাও রক্ষা পায়নি বলে গৃহবধূ লাইলী বেগম জানায়।
আহতদের আত্মচিৎকারে পার্শ্ববর্তী লোকজন এসে ঘটনা প্রত্যক্ষ করে এবং আহতদের হাসপাতালে পাঠানোর ব্যাবস্থা করে। ভূমিহীন আব্দুল কাদের আবাসন প্রকল্পে যথাযথ প্রক্রিয়ায় বরাদ্দ নিয়ে  প্রায় তিন বছর আগ থেকে সেখানে বসবাস করে আসছে। আব্দুল কাদের জানাান, বুড়াবুড়ি  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে বিষয়টি   অবহিত করে কোন প্রতিকার পাইনি। এ অবস্থায় ঘটনার সাথে জড়িত দুর্বৃত্ত মাহবুব,কাশেম,আফজাল,গোবদুল,নালু, মহাব্বত ও কাশিমের নাম উল্লেখ করে থানা ও ভূমি অফিসে লিখিত অভিযোগ করি।
এদিকে,নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, চিহ্নিত ওই দুর্বৃত্তরা স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তির ছত্রছায়ায় থেকে এলাকায় নানা রকম প্রতারনামূলক কর্মকান্ডে লিপ্ত রয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে এই চিহ্নিত দুর্বৃত্তরা গত ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহার সময় প্রধানমন্ত্রীর উপহার   ভিজিএফ এর চালের স্লিপ প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে অসহায় হতদরিদ্র বিভিন্ন পরিবারের কাছ থেকে ২০০ টাকা করে আদায় করেন। এর মধ্যে অনেকেই এখনও চাল পায়নি। তাদেরই একজন লাভলি বেগম। লাভলী বেগম সহ হতদরিদ্র এসব টাকা প্রদান কারী মানুষ টাকা ফেরত চাইলেই উল্টো তাদের হাতে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, পার্শ্ববর্তী একটি আবাসন প্রকল্প নদীতে ভেঙে যাওয়ার সময় দুর্বৃত্তরা তাদের দখলে থাকা ঘরের ব্যবহৃত ইট, কাঠ,টিনসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি লুটপাট করে নিয়ে আত্মসাৎ করেছে ।
বর্তমান আবাসন প্রকল্পের পাশেই রাক্ষসী ধরলা নদীর অবস্থান। সেখানেও নদী ভাঙ্গন রয়েছে।  ভবিষ্যতে প্রকল্পটি নদীতে ভেঙ্গে গেলে যাতে চিহ্নিত দুর্বৃত্তরা অধিক সংখ্যক ঘরের মালামাল নিতে পারে এ জন্য তারা দখলী সত্য প্রতিষ্ঠায় মরিয়া হয়ে উঠেছে। তারা ইতোমধ্যে কিছু কিছু ঘর তাদের দখলে নিয়েছে। একই ভাবে অসহায় কাদেরকেও উচ্ছেদের চেষ্টা চালাচ্ছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে নিরাপত্তার অভাবে আবাসন প্রকল্পে ৬০টি পরিবারের মধ্যে বর্তমানে ১২ থেকে ১৫ টি পরিবার অবস্থান করছে। এসব পরিবারও দুর্বৃত্তদের নানামুখী হয়রানির শিকার হচ্ছে বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছে। এ ব্যাপারে বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খন্দকার আসাদুজ্জামান এরশাদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মারপিটের কথা স্বীকার করে বলেন, ওই ব্যক্তি আবাসনের ঘরের টিন খুলে বিক্রি করার চেষ্টা করায় নাকি সেখানে মারামারি হয়েছে। ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে চুরির মামলা দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।
ফয়জার রহমান রনু
উলিপুর, কুড়িগ্রাম
০১৭৪২-৮২৭০৪১

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *