তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর পরকিয়া প্রেমিককে পেটানোর অভিযোগ অভিযোগ, ভিডিও ভাইরাল

তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর পরকিয়া প্রেমিককে পেটানোরঅভিযোগ,

অভিযোগ, ভিডিও ভাইরাল

 

শ্রীপুর (গাজীপুর )প্রতিনিধিঃ

 

জাহিদের তালাক প্রাপ্ত স্ত্রী সুলতানা। প্রেমিকের সাথে দেখা করতে এসেছিল সে। সাবেক স্বামী টের পেয়ে পিছু নেয় তার। প্রেমিকের সাথে আলাপ করছিলো সুলতানা। দেখেই উন্মাদ হয়ে উঠেন সাবেক স্বামী জাহিদ। হামলা চালায় সুলতানা ও তার পরকিয়া প্রেমিকের উপর। প্রকাশ্যে বেধরক পিটিয়ে আহত করে প্রেমিক নাজমুলকে।

 

এঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এতে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। নির্যাতনের স্বীকার ওই যুবককে মুমুর্ষ অবস্থায় প্রথমে স্থানীয় আল-হেরা হাসপাতালে পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয় হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজহাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

 

দুদিন যাবৎ নাজমুল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে জীবন মৃত্যুর সন্দিক্ষনে আছেন। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা চৌরাস্তা ইয়াকুব আলী মাস্টার সুপার মার্কেটের সামনে মাওনা ফুলবারিয়া সড়কের মাথায়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার বিকালে নির্যাতনের স্বীকার ওই যুবকের ছোট বোন স্মৃতি সুলতানা বাদী হয়ে শ্রীপুর থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

 

নির্যাতনের স্বীকার ওই যুবক উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের বেলদিয়া গ্রামের তমিজ উদ্দিনের ছেলে মো. নাজমুল (৩০)। তিনি পেশায় মুরগীর ব্যবসায়ী।

 

অভিযোক্তরা হলেন মো. জাহিদ কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে।সে শ্রীপুর উপজেলার চকপাড়া গ্রামের ছানুর বাড়ির ভাড়াটিয়া। বদনি ভাঙ্গা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে সুলতানা আক্তার।

 

জানা যায়,জাহিদের সাবেক স্ত্রী সুলতানার সাথে নাজমুলের পরকিয়ার সম্পর্ক রয়েছে। সুলতানা বিভিন্ন সময় মোবাইলে নাজমুলের সাথে কথা বলতো।

 

জাহিদ পুনরায় সুলতানার সাথে সম্পর্ক করতে চেষ্টা করে বিভিন্ন সময়ে সুলতানা কে ভয় ভীতি ও হুমকি প্রদান করেন। এ বিষয়ে সুলতানা গত ( ২৫ জানুয়ারি) জাহিদের বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

 

এর আগে (১০ অক্টোবর ২১) তারিখে সুলতানা জাহিদকে ডিভোর্স দেয়।

 

নাজমুলের সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক মেনে নিতে পারেনি জাহিদ।

 

এক পর্যায়ে রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে সুলতানা তার পরকিয়া প্রেমিক নাজমুলের সাথে দেখা করতে মাওনা চৌরাস্তায় আসে। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে জাহিদ সুলতানার পিছু নেয়। বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে সুলতানা ও প্রেমিক নাজমুলকে একসাথে পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে জাহিদ। পড়ে উত্তেজিত জাহিদ নাজমুলকে বেধরক পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে।

 

এসময় মারপিটের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরারল হয়। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে।

 

স্থানীয়রা নাজমুলকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে মাওনার আল-হেরা হাসপাতালে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্বজনরা এসে তাকে ওই দিন সন্ধ্যা সাতটার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

 

কর্তব্যরত ডাক্তার নাজমুলের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। স্বজনরা তাকে ওইদিনই রাত পৌনে দুইটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

 

পরদিন (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে নাজমুলের অপারেশন সম্পন্ন হয়। বর্তমানে নাজমুল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

 

নাজমুলের শশুর মো লিয়াকত আলী জানান, জাহিদ এলো পাথারী মারপিট করে তার মেয়ের জামাতার ডান পায়ের হাঁটুর নিচে ভেঙ্গে ফেলে। এতে চামরার উপর হাড় বের হয়ে পরে। মাথার তালুর হাড় ভেঙ্গে মাথায় রক্তক্ষরণ হয়ে মাথার ভিতর রক্ত জমাট বেধে যায়। ডাক্তারা তার মাথায় অপারেসন করে। বর্তমানে নাজমুল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আই সি ইউতে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আছে।

 

এদিকে অভিযোক্ত জাহিদের সাথে কথাবলার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

 

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান,এঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *