চেয়েও কর্মী পাচ্ছে না ফেসবুক

ফেসবুকের প্রকৌশল বিভাগের জন্য পর্যাপ্ত কর্মী পাচ্ছে না প্রতিষ্ঠানটি। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো বে এরিয়ায়। চলতি বছরের প্রথমার্ধে কর্মী নিয়োগের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাতে পারেনি বলে ফেসবুকের কর্মী নিয়োগ কৌশল নিয়ে এক অভ্যন্তরীণ নথিতে জানানো হয়।

২০১৯ সালেও এমন সংকট ভুগিয়েছে ফেসবুককে। সেবার স্বয়ং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ হতাশা প্রকাশ করেছিলেন। বিভিন্ন বিভাগের প্রধানদের নিয়ে অ্যাডহক কমিটি গঠন করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে কর্মিসংকট কাটাতে বলেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে জমা দেওয়া নথিতে এবং কংগ্রেসে ফেসবুকের সাবেক কর্মী ফ্রান্সেস হাউগেনের আইনি পরামর্শদাতার জমা দেওয়া পরিমার্জিত নথিতে এসব তথ্য উঠে আসে।

চলতি বছরের কোনো এক সময়ে লেখা ‘বর্তমানে নিয়োগ কঠিন কেন’ শীর্ষক ফেসবুকের অভ্যন্তরীণ নথিতে প্রকৌশল বিভাগের জন্য নতুন কর্মীর চাহিদার সঙ্গে জোগানের ভারসাম্যহীনতা তুলে ধরেন এক কর্মকর্তা।

নিয়োগের জন্য যোগ্য প্রার্থীর সংকটে কেবল ফেসবুক নয়। পুরো প্রযুক্তি খাতেই এ দশা, বিশেষ করে প্রকৌশলী ও সফটওয়্যার ডেভেলপার নিয়োগ নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তায় থাকে প্রতিষ্ঠানগুলো।

২০২০ সালের শেষ ও ২০২১ সালের শুরুতে, বিশেষ করে বে এরিয়াতে ‘আইসি৫’ পর্যায়ের (জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের বলা যেতে পারে) প্রকৌশল বিভাগের জন্য কর্মী নিয়োগে বেশি সমস্যার মুখে পড়েছে ফেসবুক। ওই পদের জন্য ২০২১ সালের প্রথম প্রান্তিকে ৩২০ জন কর্মী নিয়োগের কথা বলা হলেও ১৭১ জন শেষমেশ যোগ দিয়েছেন।

ওই নথিতে আরও বলা হয়, ২০২০ সালের করোনাকালীন অনিশ্চয়তায় অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে কর্মীরা ফেসবুকে যোগ দেন। তবে সে প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে নতুন করে অর্থ পাওয়ায় অতিমারি-পূর্ব অবস্থায় ফিরে গেছে।

নথির এক জায়গায় লেখা ছিল, ‘নিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ায় আমরা যা যা তৈরি করার পরিকল্পনা করেছিলাম, তার সব করতে পারছি না কিংবা বেশ ধীরগতিতে এগোচ্ছে। প্রকৌশলী নিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়া সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিল এবং মার্ক পরিষ্কার করে বলেছেন, তিনি ২০২০ সালের পুনরাবৃত্তি চান না।’

কিছুদিন আগে ইউরোপে ১০ হাজার কর্মী নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক। সেই কর্মীদের কাজের মধ্যে থাকবে ‘মেটাভার্স’ নামের ভার্চ্যুয়াল জগৎ তৈরি, যাকে ফেসবুকের ভবিষ্যৎ বলছেন মার্ক জাকারবার্গ। আজ প্রকল্পটি নিয়ে বড় ঘোষণা আসার কথা রয়েছে। তবে যুক্তরাজ্যের সংসদে চলতি সপ্তাহের শুরুতে শুনানিতে অংশ নিয়ে ফ্রান্সেস হাউগেন বলেন, সে সংবাদ শুনে তিনি ব্যথিত হয়েছেন। বলেন, ‘আপনি কি জানেন, ১০ হাজার প্রকৌশলী বেশি পেলে আমরা ব্যবহারকারীর তথ্যের সুরক্ষা নিয়ে আরও কত কী করতে পারতাম? ব্যাপারটা চমৎকার হতো।’

চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ফেসবুকের কর্মিসংখ্যা ৬০ হাজার ৬৫৪।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *