কক্সবাজার জাল টাকা চক্রের মূল হোথা রাসেল খান আটক র‍্যবের হাতে

কক্সবাজার জাল টাকা চক্রের মূল হোথা রাসেল খান আটক র‍্যবের হাতে

মোহাম্মদ শাহ এমরান, টেকনাফ (কক্সবাজার)

সাম্প্রতিক সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাল টাকার কারবারি দের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণে গুরুত্ব আরোপ করেন। এরই প্রেক্ষিতে আসন্ন রমজান ও ঈদ-উল-ফিতরে জাল টাকার প্রতারণার স্বীকার হয়ে জনভোগান্তি প্রতিরোধে কক্সবাজারসহ জেলার এলাকার জাল টাকার কারবারিদের সম্পর্কে র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ব্যাপক গোয়েন্দা কার্যক্রম শুরু করে। কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম এলাকায় মাহে রমজান ও পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে একটি সক্রিয় চক্র বাজারে জাল টাকার নোট ছাপিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে সাধারণ জনগনের টাকা অবৈধভাবে হাতিয়ে নেয়ার চক্রকে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায়, র‌্যাব-১৫, কক্সবাজার গোপন সংবাদ ও তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কক্সবাজার জেলার সদর থানাধীন কক্সবাজার পৌরসভার ০১ নং ওয়ার্ড সমিতি পাড়া এলাকার গোলাম মোস্তফার টিনশেড ভাড়া বাসার একটি কক্ষে জাল টাকাসহ একজন লোক অবস্থান করছে।

উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ১০ মার্চ ২০২৪ তারিখ সকাল অনুমান ০৬.৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-১৫, সিপিএসসি ক্যাম্পের একটি চৌকস আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। অভিযান পরিচালনাকালে র‌্যাবের আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে পৌঁছালে র‌্যাবের উপস্থিতি বুঝতে পেরে কৌশলে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে একজন জাল টাকার অন্যতম কারবারীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত জাল টাকার কারবারীর দেহ তল্লাশী করে তার হেফাজত হতে সর্বমোট ৩০,০০০/- (ত্রিশ হাজার) টাকার জালনোট, নগদ ৫,১৫০/- (পাঁচ হাজার একশত পঞ্চাশ) টাকা ও ০১টি মোবাইল জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃত জাল টাকার কারবারীর বিস্তারিত পরিচয় মোঃ রাসেল খান (২৫), পিতা-নুরুল আনোয়ার প্রকাশ লালু মাঝি, মাতা-খাদিজা বেগম, সাং-মধ্যম কুুতবদিয়া পাড়া (লালু মাঝির বাড়ী), ০১নং পৌর ওয়ার্ড, এ/পি-সমিতির পাড়া, ০১নং ওয়ার্ড, জনৈক গোলাম মোস্তফার টিনশেড ভাড়াবাসা, থানা-সদর, জেলা-কক্সবাজার বলে জানা যায়।

আটককৃত রাসেল’কে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, আসন্ন রমজান এবং ঈদ-উল-ফিতর কে কেন্দ্র সংঘবদ্ধ চক্রের মাধ্যমে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় জাল টাকার অবৈধ ব্যবসার মাধ্যমে মানুষের টাকা হাতিয়ে নেওয়াই তাদের মুল টার্গেট। রমজান ও ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে জাল টাকার নোট সংগ্রহ ও বাজারে ছেড়ে দেওয়ার লক্ষ্যে এই সংঘবদ্ধ চক্র সক্রিয় হয়েছে বলে জানা যায়। প্রতিটি এক হাজার টাকার জাল নোট সে ৫০০ টাকায় বিক্রি করে বলে জানায়। জনমনে স্বস্তি ও জনভোগান্তি রোধে জালনোট ছাপানো এবং তা বাজারে ছড়িয়ে দেয়া চক্রের অন্যান্য জালনোট ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে র‍্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উদ্ধারকৃত আলামতসহ গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণার্থে কক্সবাজার জেলার সদর মডেল থানায় লিখিত এজাহার দাখিল করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *